Bengali Year

বৃশ্চিক রাশির ১৪৩১ বাংলা বছরটা কেমন কাটবে, কি করলে ভালো থাকবেন

১৪৩১ সালের পয়লা বৈশাখ থেকে চৈত্রসংক্রান্তি পর্যন্ত বৃশ্চিক রাশির মোটামুটি বছরটা কেমন যাবে তার সম্ভাব্য ফলাফল ও কি করলে বছরটায় ভালো থাকবেন।

এই রাশির জাতক জাতিকারা চঞ্চল ও একগুঁয়ে মনোভাবের হয়। রাগ জেদ অস্থিরতা অধীর ও পরশ্রীকাতরতা দোষগুলি এ রাশিতে প্রায়ই থাকে। উদারতার প্রকাশ ও চারিত্রিক দৃঢ়তা কম। আত্মপ্রশংসায় পঞ্চমুখ হয়ে থাকে। আধ্যাত্মিকতার মধ্যেও এদের ভণ্ডামি থাকে। অসম্ভব সংগ্রামের মধ্যে দিয়ে প্রতিষ্ঠা আসে, তবে চন্দ্রের নিচস্থান বৃশ্চিক রাশি, তাই কিছুতেই শান্তিটা আসে না।

পারলৌকিক বিষয়ে কৌতূহল সীমাহীন। এদের করা কাজ অন্যের ভালো না লাগলেও নিজের পরিতৃপ্তিই যথেষ্ট। ইচ্ছাধীন কর্মে আগ্রহী। অন্যের মত ও কথায় গুরুত্ব দিতে নারাজ।

বিবাহিত জীবনে মন ও মতের মিলের অভাব থাকে। এই রাশির জাতক জাতিকারা ব্যর্থতার মধ্যেও খুঁজে নিতে পারে আধ্যাত্মিকতা। শেষ জীবন প্রায়ই কাটে ধর্মীয় জীবনে মনোনিবেশে।

আমার জ্যোতিষশাস্ত্রের শিক্ষাগুরু শ্রীশুকদেব গোস্বামীর গ্রন্থের সাহায্য নিয়ে এই অংশটুকু লেখা হয়েছে। এর সঙ্গে সংযোজন করা হয়েছে নিজের পেশাগত জীবনের বেশ কিছু অভিজ্ঞতার কথা। লেখক চিরকৃতজ্ঞ হয়ে রইল উক্ত গ্রন্থের লেখক ও প্রকাশকের কাছে।

বছরটা কেমন কাটবে : কর্মজীবনে ব্যবসার ক্ষেত্রে বছরটা খুব ভাল নয় আবার পড়ে মার খাওয়ার মতো নয়। তবে কর্মক্ষেত্রে সার্বিক চাপ বাধা আর অস্থিরতা একটা থাকবে। স্বাধীন পেশা বা চাকরি ক্ষেত্রে যারা আছেন তাদের সময়টা কাটবে গতানুগতিক ধারায়। মোটের উপর কর্মক্ষেত্রে সময়টা কাটবে বড্ড চাপের মধ্যে দিয়ে।

আর্থিক ব্যাপারে মানসিক চাপ আর অশান্তি একটা থেকে যাবে। প্রত্যাশিত অর্থাগমে বাধা হবে। আর্থিক যোগাযোগ ও কথাবার্তা হয়ে শেষ পর্যন্ত তা ভেস্তে যাওয়ার সম্ভাবনা প্রবল। মাত্রাতিরিক্ত ব্যয় চাপে অস্থির হয়ে উঠতে পারেন।

দেহ ও মন সারা বছর কম বেশি বিব্রত করবে। স্বাস্থ্যটা ভালো যাবে না। একটা না একটা লেগে থাকবে। বড় কোন ভয় নেই তবে স্বাস্থ্য স্বস্তিও দেবে না নিকট কোনও আত্মীয়দের স্বাস্থ্য তাৎক্ষনিকভাবে উদ্বেগ বাড়তে পারে।

বিদ্যার্থীদের পক্ষে সময়টা অনুকূলে নয়। প্রতিষ্ঠা ক্ষেত্রে শত্রুকে জয় করবে। কোনও আত্মীয়দের মানসিক শান্তি বিঘ্নিত হবে। কোনও অনাত্মীয়ের সহায়তালাভ হবে।


ধর্মভাব শুভ। সদগুরুর আশ্রিত হওয়ার যোগ। এ বছর মাঝে মাঝে কাছাকাছি কোথাও না কোথাও বেড়াতে যাবেন। উটকো ঝামেলা আর ব্যয় বাড়বে অসম্ভব। আত্মীয় প্রীতিতে বাধা।

এ বছর বহু আত্মীয় ও অনাত্মীয়ের বাড়ি নিমন্ত্রিত হবেন। আনন্দিত হবেন তবে যথেষ্ট অর্থ ব্যয়ও হবে নিমন্ত্রণ রক্ষার্থে। শত্রু ভয় নেই। বছরের শেষটা বেশ ভালোই কাটবে।

মাঝে মাঝেই কোনও উৎসাহ বর্ধক সংবাদ মনকে আনন্দিত করবে। বাড়িতে কয়েকবার শুভ কর্মানুষ্ঠানের যোগ। নতুন কোনও পরিচয়ে উপকৃত না হলেও আনন্দিত হবেন। কোনও মাঙ্গলিক কর্মে অর্থদান করে একটা আত্মতৃপ্তি বোধ করতে পারেন। কোনও পরিচিত বা অপরিচিত ব্যক্তি আপনার মাধ্যমে কোনও ভাবে উপকৃত হবেন।

এখানে যে প্রতিকারগুলি রাশি অনুযায়ী করা হল তা শুধুমাত্র এক বছরের জন্য। প্রতিকারগুলি আমার মনগড়া কোনও কথা নয়। বিভিন্ন সময়ে ভারতের নানা প্রান্তে ভ্রমণকালীন পথচলতি সাধুসঙ্গের সময় লোক-কল্যাণে সাধুদের বলা প্রতিকারগুলিই এখানে করা হল।

কি করলে একটু ভালো থাকবেন : প্রতি শনি ও মঙ্গলবার, সপ্তাহে দুদিন কুকুরকে মুরগি কিংবা খাসির কাঁচা বা রান্না করা এক টুকরো মাংস খেতে দিন। সারা বছরের অনেক বাধা বিপত্তি কাটবে। শারীরিক অস্বস্তি কাটবে। উটকো ঝামেলা যাবে। মনে অনেক স্বস্তি আসবে।

কি রঙের পোশাক পরবেন : সাংসারিক মানসিক কর্ম ও প্রতিষ্ঠা জীবনের ক্ষেত্রে হালকা লাল, হালকা হলুদ, হালকা আকাশি ও সাদা রঙের পোশাক কল্যাণকর। আকাশিটা বাদ দিয়ে বাড়ি-ঘরের ক্ষেত্রে ওই রংগুলির যে কোনওটি ব্যবহার করতে পারেন।

এবার ব্যক্তিগত রাশি অনুসারে ‘ফল’ কতটা মিলবে সে বিষয়টি খোলসা করে বলা যাক। এখানে যে ফলাফল লেখা হল তা একেবারেই অনুমানভিত্তিক।

নক্ষত্র ভেদে এক এক জাতক-জাতিকার মানসিক গঠন, চিন্তাভাবনা, চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য, জীবনপ্রবাহ এক একরকম হয়ে থাকে; এর সঙ্গে থাকে জন্মকালীন রাশিচক্রে শুভাশুভ গ্রহের অবস্থান। রাশি এক হলেও নক্ষত্র ইত্যাদি ভেদে ফলাফলের তারতম্যটাই স্বাভাবিক।

অত্যন্ত সূক্ষ্ম বিচার করে ফলাফল লেখা সম্ভব হয় না। প্রত্যেকটা রাশির কোনও একটা নক্ষত্রকে ধরে গড়ে একটা অনুমানভিত্তিক শুভাশুভ ফল লেখা হয়। ফলে কারও ফল মেলে দারুণভাবে, কারও কিছু কিছু, কারও বা একেবারেই নয়।

সব কথা মিলবে, এমনটা ভাববার কোনও কারণ নেই। এখানে রাশির ওপর ভিত্তি করে ভাগ্যফল নিয়ে যা লেখা তা অভিজ্ঞতায় দেখা একটা আভাস মাত্র। এটাই বাস্তব সত্য বলে ধরে নিয়ে চলাটা কোনও কাজের কথা নয়, চলার কারণ আছে বলেও মনে হয় না।

Show Full Article

11 Comments

  1. একটা প্রশ্ন। আপনার এই ভবিষ্যদ্বাণী ভারতীয় মতানুসারে না ইংরেজী রাশিচক্র অনুযায়ী, সেটি যদি পরিস্কার করে দেন, তাহলে উপকার হয়। যেমন, আমার রাশি তুলা–দেশীয় মতে। অথচ, ইংরেজী মতে বৃশ্চিক। ফলে, ধাঁধাঁ থেকেই যায়।
    যদিও, সবিনয়ে নিবেদন করি, এধরণের ভবিষ্যদ্বাণী আমার পঁচাত্তর বছর বয়সে ফলতে দেখিনি। তাও, জ্যোতিষ শাস্ত্রে কৌতূহল আছে বলে লিখলাম।

      1. Hii
        My Name BUBAI DAS
        Date Of Birth:-27/11/1993
        Time :-05:00 am
        My Home : JIAGANJ/MURSHIDABAD
        Pin:-742123
        My Rasi:- Scorpio Rasi
        Gotra:- Alimun
        Nakkhatra:- Radha
        Amr Report ta ektu bolben…..

  2. বৃশ্চিক রাশির নক্ষত্র গুলি কি কি, বা কি ভাবে জানবো
    প্রত্যেক টা নক্ষত্র এর কাজ গুলো কিভাবে জানবো

    জন্মদিন 28এ অক্টোবর 1993 বৃস্পতিবার

  3. আমার নাম প্রীতম বিশ্বাস। আমার বৃশ্চিক রাশি আর অনুরাধা নক্ষত্র দেবগণ। জন্ম তারিখ ০৯/০৫/১৯৮২ বাংলার ২৫ শে বৈশাখ রবিবার সন্ধ্যা ০৬:৩৫। আমার এই বছরটা কেমন যাবে জানালে উপকৃত হই।

  4. Kichu monee korben na… apnar kache anek biswas niye amr maa amy niye giyechilo 2000/2001 salee.. apnar kotha moto chole amr jibon ta akebare charkhar hoye gelo.. r ei jibon tar theke kichu pawar nei.. 1ta dustbin aj amr jibonta .. bolte paren kyano ???

  5. 1st ei boli… amr ei comment ta apni ba apnara keoi approve korben na public zone e… tao likhlam.. public na janleo apni to janben..

    Kichu monee korben na… apnar kache anek biswas niye amr maa amy niye giyechilo 2000/2001 salee.. apnar kotha moto chole amr jibon ta akebare charkhar hoye gelo.. r ei jibon tar theke kichu pawar nei.. 1ta dustbin aj amr jibonta .. bolte paren kyano ???

  6. Amar brischik rashi r jestha nakhatra r singho lagna, 15 the April 1971 e jonmo….doya Korey sathik bolun Amar business e safollo Kobe pabo r nijer Bari / flat Kobe hobe

  7. ১৩৮০ সালের ৪ঠা জ‍্যৈষ্ঠ সকাল ৮:৩০ -৯ টার মধ‍্যে পুর্বস্থলী হাসপাতালে জন্ম।
    বৃশ্চিক রাশি, মিথুন লগ্ন, অনুরাধা নক্ষত্র, দেবগন,
    বর্তমানে ভীষণ ভাবে আর্থিক সংকট ও ঋণে পরে গেছি। একটি জরুরী কার্য সমাধান করতে যত বার সফল হবার আশায় ঋণ করচ্ছি ততবারই ব‍্যর্থ হচ্ছি, আমি বুঝতে পারছি না কেন এমন হচ্ছে, অথচ ঐ কাজ সফল না হলে আমি ঋণ মুক্ত হতে পারব না, পাওনাদারদের তাগাদায় আর হুমকিতে সবার সাথে সম্পর্ক ছিন্ন হয়ে মানষিক দ্বন্দ্বে পরে ঢরম হতাশাগ্রস্ত হয়ে জীবন-মৃত‍্যুর মুখোমুখি হয়ে আছি। আমি বুঝতে পারছি না একিকোনো দৈবদুর্বিপাক না গ্রহরুষ্টের ফল। এর প্রতিকার কি? জানালে বাধিত হব। ধ‍ন‍্যবাদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *